Home Uncategorized
39
0

ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেছেন, ভূমি সংক্রান্ত অপরাধ থেকে মানুষকে বিরত রাখতেই এই আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। এই আইন দেশের সাধারণ মানুষের দীর্ঘদিনের দাবির প্রতিফলন।বুধবার সচিবালয়ে ভূমি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে জাতীয় সংসদে গতকাল উত্থাপন করা ভূমি বিষয়ক তিনটি বিলের বিষয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। এই সময় ভূমি সচিব মো: খলিলুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব মো: আব্বাছ উদ্দিন, অতিরিক্ত সচিব প্রদীপ কুমার দাস, যুগ্মসচিব মো: নজরুল ইসলামসহ ভূমি মন্ত্রণালয়ের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। মন্ত্রী বলেন, ভূমি বিষয়ক অপরাধকে ৮টি মৌলিক ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এসব হচ্ছে ভূমি প্রতারণা- ভূমি জালিয়াতি ও অবৈধ দখল, ক্রেতা বরাবর বিক্রিত ভূমির দখল হস্তান্তর না করা ‘সীমানা বা ভূমির ক্ষতিসাধন; সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান বা জনসাধারণের ব্যবহার্য ভূমির অবৈধ দখল, প্রবেশ বা কোনো কাঠামো নির্মাণ বা ক্ষতিসাধন, সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের স্বার্থযুক্ত বা জনসাধারণের ব্যবহার্য ভূমি অবৈধ ভরাট, শ্রেণি পরিবর্তন, মাটির উপরি-স্তর কর্তন ও ভরাট করা।তিনি আরো বলেন, এছাড়াও আরো ৪ ধরনের অপরাধকে সম্পূরক করা হয়েছে, সে অপরাধগুলো হলো আদেশ অমান্য, অপরাধ সংঘটনে সহায়তা বা প্ররোচনা, অপরাধ পুনঃ সংগঠন, কোম্পানি কর্তৃক অপরাধ সংঘটন।ভূমি সংস্কার আইন সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ব্যক্তি পর্যায়ে ৬০ বিঘার বেশি কৃষি জমির মালিক হওয়া যাবেনা। উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া ভূমির ৬০ বিঘার বেশি হলে উত্তরাধিকারী পছন্দমত ৬০ বিঘা ভূমি রাখতে পারবে এবং অবশিষ্ট ভূমি সরকার বিধি দ্বারা নির্ধারিত পদ্ধতিতে ক্ষতিপূরণ দিয়ে খাস করা হবে। তিনি বলেন, তবে কেউ যদি ৬০ বিঘা জমি থাকা সত্ত্বেও বেআইনিভাবে নামে-বেনামে নতুন করে বেশি জমি ক্রয় করে তাহলে তার অতিরিক্ত জমি বাজেয়াপ্ত করা হবে এবং এক্ষেত্রে সরকার কোনো ক্ষতিপূরণ দেবে না।

Previous articleদীননাথ ইনস্টিটিউশন সাত কাপন সরকারি মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সনদ নিয়ে বিভ্রান্তি
Next articleনিউইয়র্কে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here